যাকাত সম্প্রসারণ কার্যক্রম

যাকাত : সম্পদ পরিশুদ্ধি, প্রবৃদ্ধি ও দারিদ্র্য বিমোচন-মোঃ আবদুল গনী শিব্বীর।

মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন মানবজাতীকে তাঁর ইবাদাতের জন্যই সৃষ্টি করেছেন। শরীয়ত মোতাবেক সার্বজনীনভাবে প্রাপ্ত বয়স্ক সকল মুসলমানের জন্য ইবাদাত হিসেবে ইমানের পর সালাত ও সাওম ফরয। যাকাত ও হজ্ব শর্ত স¦াপেক্ষে নির্দিষ্ট ব্যক্তির উপর ফরয। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ইমানদারের জীবনকে সালাত ও সাওমের মাধ্যমে পরিশুদ্ধ করেন। সালাতের প্রাত্যহিক অনুশীলনের মাধ্যমে বান্দাহগণ আল্লাহ প্রদত্ত নেয়ামতের প্রবৃদ্ধি ঘটান। সিয়াম সাধনার মাধ্যমে দৈহিক ও আত্মিক অপরিসীম কল্যাণ হাসিল করেন।

সম্পদ মানব জাতির প্রতি মহান আল্লাহপাকের বিশেষ অনুগ্রহ ও মহাদান। দুনিয়াবী জীবনে বান্দাগণ যাতে জীবনযাত্রা স্বচ্ছলভাবে ও সাচ্ছন্দে কাটাতে পারে সেজন্য আল্লাহপাক বান্দাহদেরকে সম্পদশালী করেন। সব বান্দাহকে আল্লাহপাক সম্পদশালী করেন না, কাউকে ধনী কাউকে গরীব বানান। আল্লাহপাক বান্দাহকে সম্পদের মালিক বানিয়ে তাকে পরীক্ষা করতে চান, সত্যিকার অর্থে সে সম্পদ পেয়ে আল্লাহর কৃতজ্ঞতা আদায় করে, নাকি অকৃজ্ঞ বনে যায়। ধনী ও স্বচ্ছল ব্যক্তিরা গরীবের প্রতি সদাচার করে কিনা ? তিনি তা দেখতে চান। আল্লাহপাক ধনীদের সম্পদের মধ্যে গরীবের অধিকার নির্ধারণ করে দেন। ধনী ও স্বচ্ছল ব্যক্তি যারা নির্দিষ্ট সময়ে নেসাব পরিমান সম্পদের মালিক হন আল্লাহপাক তাদের উপর যাকাত ফরয করে দেন।

যাকাত ফরয ইবাদাত। নেসাব পরিমান মাল পুরো একবছর অতিবাহিত হবার পর মালের মালিকের উপর যাকাত দেয়া ফরয। শরীয়ত নির্দেশিত পন্থায়, নির্দিষ্ট খাতে যাকাত বন্টন করতে হয়। পবিত্র কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে যাকাতের বর্ণনা, খাত ও ফযিলত সম্পর্কে বর্ণনা করা হলো। যাকাত শব্দের অর্থ শুচিতা ও পবিত্রতা, শুদ্ধি ও বৃদ্ধি।

পরিভাষায় আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে শরিয়ত নির্ধারিত পরিমাণ সম্পদের নির্দিষ্ট অংশ কুরআনে বর্ণিত আট প্রকারের কোন এক প্রকার লোক অথবা প্রত্যেককে দান করে মালিক বানিয়ে দেয়াকে যাকাত বলে। অপর বর্ণনায় এসেছে, কোন অসচ্ছল গরীব মুসলমানকে বা মুসলমানদেরকে কোন প্রকার বিনিময় ও শর্ত ছাড়া যে সকল মালের উপর যাকাত প্রযোজ্য ঐ মালের (বর্তমান বাজারের বিক্রয় মূল্যের) চল্লিশ ভাগের এক অংশের মালিক বানানো। (আদ্দুরুল মুখতার ২:২৫৬)।

যাকাত সম্পর্কে পবিত্র কুরআন মাজীদে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘তোমরা নামায কায়েম কর, যাকাত প্রদান কর এবং রুকুকারীদের সাথে রুকু কর’। (সূরা বাক্বারা: আয়াত: ৪৩)। আল্লাহপক আরো বলেন,‘যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে, সৎ কাজ করেছে, নামায প্রতিষ্ঠিত করেছে এবং যাকাত প্রদান করেছে, তাদের জন্য পুরস্কার তাদের পালনকর্তার কাছে রয়েছে। তাদের কোন ভয় নাই এবং তারা দুঃখিত হবে না ’। (সুরা বাক্বারা: আয়াত: ২৭৭)।

তিনি আরো বলেন, ‘আর যারা স্বর্ণ ও রৌপ্য পুঞ্জীভুত করে এবং তা আল্লাহর পথে ব্যয় করে না, তাদেরকে মর্মন্তুদ শাস্তির সংবাদ দাও। যে দিন জাহান্নামের অগ্নিতে তা উত্তপ্ত করা হবে এবং তা দ্বারা তাদের ললাট,পার্শ্বদেশ ও পৃষ্ঠদেশে দাগ দেয়া হবে, সেদিন বলা হবে এটাই তা যা তোমরা নিজেদের জন্য পুঞ্জীভুত করতে। সুতরাং তোমরা যা পুঞ্জীভুত করেছিলে তা আস্বাদন কর। (সূরা তাওবা: আয়াত: ৩৪-৩৫)। উল্লেখ্য যে, ইসলামী বিশ্বকোষ এর ভাষ্যমতে, আল-কুরআনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ৮২ বার যাকাতের কথা বলা হয়েছে। আল-কুরআনে প্রত্যক্ষভাবে ৩২ বার যাকাত এর কথা বলেছেন। এর মধ্যে নামায ও যাকাতের কথা একত্রে বলেছেন ২৮ বার। ফুয়াদ আব্দুল বাকী বর্ণনা করেছেন, আল-কুরআনে মোট ১৯টি সুরায় ২৯টি আয়াতে যাকাত শব্দটির উল্লেখ দেখা যায়।

পবিত্র সহীহ সুন্নাহয় যাকাত সম্পর্কে অসংখ্য বর্ণনা এসেছে। প্রবন্ধে সামান্য কয়েকটি হাদীস বর্ণনা করা হলো, আবি আবদুর রহমান আবদুল্লাহ ইবনে ওমার ইবনুল খাত্তাব (রাঃ) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি নবী (সা:) থেকে শুনেছি যে, ‘ইসলামের ভিত্তি পাঁচটি স্তম্ভের উপর প্রতিষ্ঠিত। এতে সাক্ষ্য দেয়া যে, আল্লাহ ছাড়া অন্য কোন মাবুদ নাই এবং মুহাম্মাদ (সা.) আল্লাহর প্রেরিত রাসুল, নামায প্রতিষ্ঠা করা, যাকাত দেয়া, শারীরিক ও আর্থিক সামর্থ্য থাকলে হজ্জ্ব করা এবং রমযান মাসে রোযা রাখা’। (বুখারী ও মুসলিম)।

আবু হুরায়রা (রা) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, আল্লাহ যাকে ধন-মাল দিয়েছেন, সে যদি তার যাকাত আদায় না করে, তা হলে কিয়ামতের দিন তা একটি বিশধর অজগরের যার দুচোখের উপর দুটো কালো চিহ্ন রয়েছে রূপ ধারণ করবে। বলবে, আমিই তোমার ধন-মাল, আমিই তোমার সঞ্চয়। অত:পর রাসূল (সা.) এর আয়াতটি তেলাওয়াত করলেন, আর আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে যা তোমাদেরকে দিয়েছেন তাতে যারা কৃপণতা করে, তাদের জন্য এটা মঙ্গল, এটা যেন তারা মনে না করে। না এটা তাদের জন্য অমঙ্গল। যাতে তারা কৃপণতা করবে কিয়ামতের দিন সেটাই তাদের গলায় বেড়ী হবে। আসমান ও জমিনের স্বত্বাধিকারী একমাত্র আল্লাহরই। তোমরা যা কর আল্লাহ তা বিশেষভাবে অবগত আছেন (সূরা আলে ইমরান: ১৮০) । (নাসায়ী ও ইবনে মাজাহ)।

আবূ হুরায়রাহ্ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যে ব্যক্তি সোনা রূপার (নিসাব পরিমাণ) মালিক হবে অথচ তার হক (যাকাত) আদায় করবে না তার জন্য কিয়ামতের (কিয়ামতের) দিন (তা দিয়ে) আগুনের পাত বানানো হবে। এগুলোকে জাহান্নামের আগুনে এমনভাবে গরম করা হবে যেন তা আগুনেরই পাত। সে পাত দিয়ে তার পাঁজর, কপাল ও পিঠে দাগ দেয়া হবে। তারপর এ পাত পৃথক করা হবে। আবার আগুনে উত্তপ্ত করে তার শরীরে লাগানো হবে। আর লাগানোর সময়ের মেয়াদ হবে পঞ্চাশ হাজার বছর। (এ অবস্থা চলবে) বান্দার (জান্নাত জাহান্নামের) ফায়সালা হওয়া পর্যন্ত। তারপর তাকে নেয়া হবে জান্নাত অথবা জাহান্নামে। সাহাবীগণ আরয করলেন, হে আল্লাহর রসূল! উটের বিষয়টি (যাকাত না দেবার পরিণাম) কি?

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ উটের মালিক যদি এর হক (যাকাত) আদায় না করে- যেদিন উটকে পানি খাওয়ানো হবে সেদিন তাকে দুহানোও তার একটা হক- কিয়ামতের দিন ওই ব্যক্তিকে সমতল ভূমিতে উটের সামনে মুখের উপর উপুড় করে। তার সবগুলো উট গুণে গুণে (আনা হবে) মোটা তাজা একটি বাচ্চাও কম হবে না। এসব উট মালিককে নিজেদের পায়ের নীচে ফেলে পিষতে থাকবে, দাঁত দিয়ে কামড়াবে। এ উটগুলো চলে গেলে, আবার আর একদল উট আসবে। যেদিন এমন ঘটবে, সে দিনের মেয়াদ হবে পঞ্চাশ হাজার বছর। এমনকি বান্দার হিসাব-নিকাশ শেষ হয়ে যাবে। তারপর ঐ ব্যক্তি জান্নাত অথবা জাহান্নামের দিকে অগ্রসর হবে।

সাহাবীগণ আরয করলেন, হে আল্লাহর রসূল! গরু-ছাগলের যাকাত আদায় না করলে (মালিকদের) কি অবস্থা হবে? তিনি বললেন, যে ব্যক্তি গরু-ছাগলের মালিক হয়ে এর হক (যাকাত) আদায় করে না কিয়ামতের (কিয়ামতের) দিন তাকে সমতল ভূমিতে উপুড় করে ফেলা হবে। তার সব গরু ও ছাগলকে (ওখানে আনা হবে) একটুও কম-বেশি হবে না। গরু-ছাগলের শিং বাঁকা কিংবা ভঙ্গ হবে না। শিং ছাড়াও কোনটা হবে না। এসব গরু ছাগল শিং দিয়ে মালিককে গুতো মারতে থাকবে, খুর দিয়ে পিষবে। এভাবে একদলের পর আর একদল আসবে। এ সময়ের মেয়াদও হবে পঞ্চাশ হাজার বছর। এর মধ্যে বান্দার হিসাব-নিকাশ হয়ে যাবে। তারপর ঐ ব্যক্তি জান্নাত অথবা জাহান্নামে তার গন্তব্য দেখতে পাবে। (চলবে)

লেখকঃ মোঃ আবদুল গনী শিব্বীর, মুহাদ্দিস, নোয়াখালী কারামাতিয়া কামিল মাদরাসা, সোনাপুর, সদর, নোয়াখালী।

 উৎস: দৈনিক ইনকিলাব

প্রকাশ: ২৭ মে, ২০২১

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করতে নিচের বাটনগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

Share on facebook
ফেইসবুক
Share on twitter
টুইটার
Share on email
ইমেইল

স্বর্ণ এবং রৌপ্যের
বর্তমান বাজার মূল্য

আইটেমের নাম টাকা/ভরি টাকা/গ্রাম
স্বর্ণ ২২ ক্যারেট ৭১,৯৭০ ৬১৭০
স্বর্ণ ২১ ক্যারেট ৬৮,৮২১ ৫৯০০
স্বর্ণ ১৮ ক্যারেট ৬০,০৭২ ৫১৫০
রৌপ্য ২১ ক্যারেট ১,৪৩৫ ১২৩
উৎস / সূত্র: বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি v,

অনুসন্ধান